About AEBA

 

AEBA Logo

2016 New Year GREETINGS by AEBA

 

 

 

 

 

 

 

 

All European Bangladesh Association (AEBA), a completely different type of Europe based organization formed by expatriate Bangladeshi community. This is the first interstate, non-political and non-profitable organization for one million Bangladeshis living in 30 different countries in Europe. Though AEBA is a collective organization of expatriate Bangladeshis, the journey of it formally started from our lovely motherland Bangladesh through a press conference at the National Press Club, Dhaka on 12th October, 2012. After its inception, through undergoing the organizational processes our first Grand Convention held in Athens on 1 and 2 December, 2012.

Many of us have had the opportunity to be witnesses of the history making event by attending the first Grand Convention of Greece on that day. At the outset of inviting you at the Bangladesh Global Summit 2016 in Malaysia, We would like to pay tribute to the brave martyrs who sacrificed their lives for their mother tongue Bangla in the language movement of 1952 and for their red and green flag in the liberation war of 1971. We also pay tribute to the memories of our beloved and deceased Shahidul Alam Manik, who was at the heart of our Athens Convention but he is no more among us. We pray for the departed souls of those misfortune Bangladeshis to be in peace who had a long cherished dream for coming in Europe & Malaysia, who lost their lives in the sea forever before fulfilling their dreams. In recent times, migrant workers of different countries as including Bangladesh are getting buried in the sea(s). In that context, to keep this issue on priority, the main theme of our second Grand Convention (Portugal 2015) was ‘Safe Migration and Humanity’.

The main theme of the first Grand Convention in Greece was ‘Unity for Progress’. This is true that there is no alternative to ‘unity’ whether we speak for community development or advancement of Bangladesh, home or aboard. At the same time here is no equivocation to say that Bangladeshi community in different countries of the world is divided into many groups in the colour of political-social-regional. The development of Bangladeshi community is impeded for years after years by this virus of ‘division’ in every corner of the Globe. Thus, ‘integration’ has been interrupted  in many times. Though the term ‘integration’ has increased the beauty of monogram of All European Bangladesh Association (AEBA), we had to be deeply strategic from the beginning of our activities to work with the Bangladesh community divided into different segments in countries across the Europe. Though development took place in the field level in the formation of ‘country committee’ in different countries, the visible development is being delayed for some reasonable reasons, whatsoever. We would like to assure that the visible development of the ground work that we did in the last few years would be ensured soon.

Since its inception, All European Bangladesh Association (AEBA) rendered continued and voluntary services to the Bangladeshis trapped in dangers in different countries of Europe. AEBA played the most dominant role in 2013 in Greece when the owner of a strawberry farm in the countryside caused indiscriminate firing at the innocent Bangladeshi workers. We also roared our voice putting our shoulders to the shoulders of international human rights organizations. We took all the necessary steps immediately from Paris as the headquarters of AEBA is located there. We submitted memorandum to the Greek Embassy in Paris with a demand of legalizing the injured Bangladeshi workers through sanctioning ‘stay permit’ alongside to providing them proper compensation and punishment of the accused farm owner. At the same time from Paris, AEBA Secretary General raised the issue in a meeting with the designated officials of European Commission at Brussels and they assured to consider the issue as ‘priority’ concern. Since the President of AEBA is the celebrated personality of Bangladesh community in Europe, he also did his best efforts to help the injured-maltreated Bangladeshis in Greece. Eventually, the government of Greece legalized the injured Bangladeshis on sixth month. All European Bangladesh Association shares its joy and happiness with them in this connection.

The AEBA leaders candidly utilized their respective experience and competences with optimum level of commitment to uphold the Bangladeshi heritage and culture abroad. They have efficiently done the job of ‘image building’ of Bangladesh abroad maintaining deep relationship with the senior most designated officials of the administration of different countries. The AEBA leaders have also been working relentlessly to guide the new generation properly in the search of their roots. Many Bangladeshis have got employment with their unconditional assistance, at the same time many irregular Bangladeshi migrants received the highest level of assistance from us. AEBA leaders are also working to connect the enthusiastic Bangladeshis with professional institutes of the different countries of Europe for developing them as skilled, professional and productive human resource. We have also provided assistance with our best effort in the respective countries in different charity activities of the community as including sending the dead bodies of demised Bangladeshis succumbing normal death. All European Bangladesh Association (AEBA), an organization of bringing transformation in Europe, has been working in protecting interests of the expatriates on the basis of effective communication between the government of Bangladesh and the administration of different countries in Europe. At the same time, the AEBA leaders are actively participating in the movements against racism in different countries of Europe.

In addition to the community development, All European Bangladesh Association (AEBA) is a successful stakeholder of the development of Bangladesh. In the post Rana-Plaza tragedy period, the Ready Made Garments industry of Bangladesh was prone to be at the risk the large market of Europe. At that time, strong lobbying was exerted from the AEBA Head Office in Paris with the senior management of European Commission and European Parliament in Brussels as including in France and Germany to protect the sake of this main export sector of Bangladesh. When it was at the preparatory stage to put embargo on the duty-free access of Bangladeshi goods in European market, at that time AEBA Secretary General had a formal meeting with the concerned officer of the European Union and urged an appeal in support of our stand.

Due to the earnestness of AEBA leaders, the lawful demands of the expatriates have already been documented in the Prime Minister’s office in Dhaka, even in Bangabhaban, the office of the Hon’ble President of the republic of Bangladesh. Though our activities were confined within Europe, the expatriate Bangladeshis residing all around the world are reached our message through networking. During AEBA Secretary General’s recent private tour in Japan, Korea, Malaysia, Singapore, Australia, New Zealand, Brazil & USA, the community leaders of those countries expressed their consensus with the advancement of AEBA and stresses importance on working together across the world in the wavy way of claiming and establishing lawful rights of the expatriates.

To sum up, All European Bangladesh Association (AEBA) is certainly moving ahead in the way of the implementation of the goals and objectives set forth at its founding period.

 

ইউরোপে নতুন ধারার এক ব্যতিক্রমধর্মী সংগঠন অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)। প্রায় এক মিলিয়ন বাংলাদেশী অধ্যুষিত ইউরোপে এটাই প্রথম কোন অরাজনৈতিক ও অলাভজনক আন্তঃদেশীয় সংগঠন। আয়েবা ইউরোপের ৩০টি দেশের প্রবাসী বাংলাদেশীদের সম্মিলিত সংগঠন হলেও আমাদের প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ থেকেই এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হয়েছিল ২০১২ সালের ১২ অক্টোবর ঢাকায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন আয়োজনের মধ্য দিয়ে। আত্মপ্রকাশের পর সাংগঠনিক পথ পরিক্রমায় ২০১২ সালেরই ডিসেম্বরের ১ ও ২ তারিখে এথেন্সে অনুষ্ঠিত হয় আমাদের প্রথম মহাসম্মেলন।

আমাদের অনেকেরই সেদিন সৌভাগ্য হয়েছিল গ্রীসের প্রথম গ্র্যান্ড কনভেনশনে উপস্থিত থেকে ইতিহাসের স্বাক্ষী হবার। আমরা লাল-সালাম জানাচ্ছি আমাদের বীর শহীদদের, যাঁরা বায়ান্নতে মাতৃভাষা বাংলার জন্য এবং একাত্তরে লাল-সবুজ পতাকার জন্য জীবন বিসর্জন দিয়েছিলেন। রুহের মাগফেরাত কামনা করছি আমাদের সবার প্রিয় শহিদুল আলম মানিকের স্মৃতির প্রতি, যিনি এথেন্স কনভেনশনের মধ্যমনি হলেও আজ আর আমাদের মাঝে নেই। ইউরোপ ও মালয়েশিয়া আসার স্বপ্নে বিভোর সেই সকল হতভাগ্য বাংলাদেশীদের আত্মার শান্তি কামনা করছি, যাঁরা স্বপ্ন পূরণের আগেই সাগরে হারিয়ে গিয়েছেন চিরতরে। সাম্প্রতিককালে বাংলাদেশী সহ বিভিন্ন দেশের সহস্রাধিক অভিবাসী সাগরে সলিলসমাধির শিকার হওয়ার প্রেক্ষিতে অতীব গুরুত্বপূর্ণ এই ইস্যুটিকে লাইমলাইটে রাখতেই পর্তুগালে অনুষ্ঠিত আয়েবা গ্র্যান্ড কনভেনশনের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় ছিল ‘সেইফ মাইগ্রেশন এন্ড হিউম্যানিটি’ তথা ‘নিরাপদ অভিবাসন ও মানবিকতা’।

২০১২ সালে গ্রীসে প্রথম গ্র্যান্ড কনভেনশনের মূল প্রতিপাদ্য ছিল ‘ইউনিটি ফর প্রগ্রেস’। প্রবাসে কমিউনিটির উন্নয়ন বলি আর বাংলাদেশের অগ্রগতির কথাই বলি, কি দেশে কি বিদেশে ‘ইউনিটি’  বা একতার বিকল্প নেই, এটা যেমন সত্য, ঠিক তেমনি বলতে দ্বিধা নেই, বাংলাদেশের রাজনৈতিক-সামাজিক-আঞ্চলিকতার ভিত্তিতে বহুদাবিভক্ত আজ পৃথিবীর দেশে দেশে বাংলাদেশ কমিউনিটি। বিশ্বের যেখানেই বাংলাদেশ কমিউনিটি আছে সেখানেই দ্বিধা-বিভক্তির এই ‘ভাইরাস’ বছরের পর বছর ধরেই ব্যাহত করে চলেছে কমিউনিটির অগ্রযাত্রা। ফলে ‘ইন্টিগ্রেশন’ বাধাগ্রস্ত হয়েছে বারে বারে। ‘ইন্টিগ্রেশন’ শব্দটি অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসেসিয়েশন আয়েবা’র মনোগ্রামের শোভা বর্ধন করলেও দেশে দেশে বহু ভাগে বিভক্ত বাংলাদেশ কমিউনিটির সাথে কাজ করতে গিয়ে আমাদেরকে শুরু থেকেই অনেক কৌশলী হতে হয়েছে। বিভিন্ন দেশে ‘কান্ট্রি কমিটি’ গঠন প্রক্রিয়ায় মাঠ পর্যায়ে অগ্রগতি হলেও দৃশ্যমান অগ্রগতি যৌক্তিক কারণেই বিলম্বিত হচ্ছে এক্ষেত্রে। গত কয়েক বছরে আমাদের করা গ্রাউন্ডওয়ার্কের ‘দৃশ্যমান অগ্রগতি’ নিশ্চিত হবে সহসাই।

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসেসিয়েশন (আয়েবা) ‘নন-স্টপ এন্ড ফ্রি অব কস্ট’ সার্ভিস দিয়ে এসেছে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে বিপদগ্রস্ত বাংলাদেশী ভাই-বোনদের। সাফল্য হিসেবে বলতে চাই না, তবে আয়েবা সবচাইতে বড় দায়িত্বটি পালন করেছে ২০১৩ সালে গ্রীসের প্রত্যন্ত গ্রামে স্ট্রবেরি খামারে মালিক কর্তৃক নিরীহ বাংলাদেশী কর্মী তথা আমাদের মেহনতী ভাইদের ওপর নির্বিচারে গুলীবর্ষণ পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহে। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলোর সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সেদিন গর্জে উঠেছিলাম আমরাও। আয়েবা সদর দফতর হিসেবে প্যারিস থেকে যা যা করণীয় ছিল, সবই দ্রুততার সাথে করা হয় তখন। গুলীবর্ষণে আহত অবৈধ বাংলাদেশীদেরকে যাতে ‘স্টে পারমিট’ দিয়ে বৈধ করে নেয়ার পাশাপাশি ক্ষতিপূরণও দেয়া হয়, সেজন্য প্যারিসে অবস্থিত গ্রীক দূতাবাসে দেয়া হয় স্মারকলিপি। একই সময় ব্রাসেলসে ইউরোপিয়ান কমিশনে দায়িত্বশীল পর্যায়ে কর্মকর্তাদের সাথে আয়েবা সেক্রেটারি জেনারেলের  বৈঠকে ইস্যুটি উত্থাপন করা হয় এবং তাঁরা এটিকে ‘প্রায়োরিটি’ হিসেবে দেখার আশ্বাস দেয় তখন। আয়েবার সম্মানিত সভাপতি যেহেতু একাধারে গ্রীসের বাংলাদেশ কমিউনিটির প্রাণপুরুষ, তাই তিনিও সাধ্যমতো সব কিছুই করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত তথা আহত-নির্যাতিত বাংলাদেশীদের পাশে দাঁড়াতে। ছয় মাসের মাথায় আহত বাংলাদেশীদের বৈধতা দান করে গ্রীক সরকার। তাঁদের আনন্দের সাথে তাই আজ অংশীদার অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসেসিয়েশন (আয়েবা)।

বাংলাদেশের কৃষ্টি-সংস্কৃতিকে বিদেশ বিভুঁইয়ে অনুপমভাবে তুলে ধরতে আয়েবা নেতৃবৃন্দ যার যার দেশে সর্বোচ্চ আন্তরিকতার সাথে কাজে লাগিয়েছেন স্বীয় অভিজ্ঞতা ও যোগ্যতাকে। বিভিন্ন দেশের প্রশাসনের সর্বোচ্চ কর্তাব্যক্তিদের সাথে নিবিড় সম্পর্ক বজায় রেখে তাঁরা প্রবাসে বাংলাদেশের ‘ইমেজ বিল্ডিং’-এর কাজটি করেছেন সুচারুভাবে। শেকড়ের সন্ধানে নতুন প্রজন্মকে সঠিক পন্থায় গাইড করতেও আয়েবা নেতৃবৃন্দ নিরলস পরিশ্রম করেছেন দেশে দেশে। তাঁদের নিঃস্বার্থ সহযোগিতায় বহু বাংলাদেশীর যেমন বিভিন্ন দেশে কর্মসংস্থান হয়েছে, পাশাপাশি অবৈধ বাংলাদেশীরাও সর্বাত্মক সহযোগিতা পেয়েছেন আমাদের কাছ থেকে। আগ্রহী বাংলাদেশীদেরকে পেশাগতভাবে দক্ষ করে তোলার জন্য ইউরোপের বিভিন্ন দেশের প্রফেশনাল ইনস্টিটিউটের সাথে তাদের সম্পৃক্ততা বাড়াতেও কাজ করেছেন আয়েবা নেতৃবৃন্দ। প্রবাসে মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশীদের লাশ দেশে প্রেরণ সহ কমিউনিটির বিভিন্ন চ্যারিটি কার্যক্রমে আমরা সংশ্লিষ্ট দেশে যার যার অবস্থান থেকে সাধ্যমতো সহযোগিতা করেছি। দেশে দেশে বর্ণবাদ বিরোধী আন্দোলনে আমাদের সক্রিয় অংশগ্রহনের পাশাপাশি প্রবাসীদের স্বার্থরক্ষায় বাংলাদেশ সরকার সহ ইউরোপের বিভিন্ন দেশের প্রশাসনের সাথে ফলপ্রসু যোগাযোগের ভিত্তিতে কাজ করছে অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)।

কমিউনিটি ডেভেলপমেন্টের পাশাপাশি বাংলাদেশের উন্নয়নেরও স্বার্থক অংশীদার অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসেসিয়েশন (আয়েবা)। রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি পরবর্তী বাংলাদেশের তৈরী পোষাক শিল্প যখন ইউরোপের বিশাল বাজারে হুমকির মুখে, তখন প্যারিসে অবস্থিত আয়েবা হেড অফিস থেকে ফ্রান্স-জার্মানী সহ ব্রাসেলসের ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন ও ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে কর্মকর্তা পর্যায়ে জোরালো লবিং চালিয়ে যাওয়া হয় বাংলাদেশের প্রধান এই রফতানী খাতের স্বার্থরক্ষায়। ইউরোপের বাজারে বাংলাদেশী পন্যের শুল্কমুক্ত প্রবেশাধিকার সুবিধার ওপর যখন নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তুতি চলছিল, ঠিক তখনই ইইউ’র সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার সাথে আনুষ্ঠানিক বৈঠক করে আয়েবা সেক্রেটারি জেনালেল জোর দাবী জানিয়েছিলেন আমাদের তথা বাংলাদেশের অবস্থানের স্বপক্ষে।

আয়েবা নেতৃবৃন্দের আন্তরিকতায় প্রবাসীদের ন্যায্য দাবীদাওয়া ইতিমধ্যে স্থান পেয়েছে ঢাকায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় এমনকি বঙ্গভবনে মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছেও।  আমাদের সরাসরি কার্যক্রম বিগত দিনে ইউরোপের মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকলেও বিশ্বায়ণের এই যুগে নেটওয়ার্কিংয়ের ভিত্তিতে এর প্রচার-প্রসার ও কার্যক্রম ইতিমধ্যে সম্প্রসারিত হয়েছে বিশ্বের নানা প্রান্তের প্রবাসী বাংলাদেশীদের মাঝে। সাম্প্রতিক সময়ে জাপান, কোরিয়া, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ব্রাজিল ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আয়েবা সেক্রেটারি জেনারেলের ব্যক্তিগত সফরের সময় ঐসব দেশের কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ আয়েবা’র অগ্রযাত্রার সাথে একাত্মতা প্রকাশ করেন এবং প্রবাসীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের বন্ধুর পথচলায় বিশ্বব্যাপী একসাথে কাজ করার ওপর গুরুত্ব দিয়েছেন। সব মিলিয়ে প্রতিষ্ঠাকালীন লক্ষ্য-উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের পথে সুনিশ্চিতভাবেই এগিয়ে চলেছে অল ইউরোপিয়ান বাংলাদেশ এসোসিয়েশন (আয়েবা)।